এবার গঙ্গাসাগর যাত্রীদের সুব্যবস্থা করছে প্রশাসন! কোভিড পরিস্থিতিতেও থেমে নেই গঙ্গাসাগরের প্রস্তুতি


 এবার তীর্থ যাত্রীদের জন্য ব্যবস্থা করছে প্রশাসন। সুব্যবস্থার মাধ্যমে এবারে গঙ্গাসাগর যাত্রীরা যথেষ্ট ভালো ভাবে তীর্থ যাত্রা সম্পূর্ণ করতে পারবে। করোনা পরিস্থিতির জন্য বিভিন্ন জায়গায় যে অবস্থা হয়েছিল বিভিন্ন অনুষ্ঠান থেকে শুরু করে সবকিছু বন্ধ ছিল তা আর নয় এবার গঙ্গাসাগর যাত্রীদের জন্য অনেক বেশি পরিষেবা দিতে সক্ষম হতে পারে প্রশাসন। তা নিয়ে সোমবার এক বৈঠকে কলকাতা প্রশাসন সহ বিভিন্ন মন্ত্রী এবং ওপর মহলের মানুষের সাথে বৈঠক হয়। সুন্দরবনের মুখ্যমন্ত্রী মন্টু রাম পাখিরা এছাড়াও ছিলেন আরো অনেকেই উপর মহলে নেতা মন্ত্রিরা। তারা সবাই মিলে ঠিক করেছিলেন গঙ্গাসাগর যাত্রীদের জন্য কিভাবে সুপরিসেবার মাধ্যমে অনেক দূর এগিয়ে নিয়ে যাওয়া যায়।


শুধুমাত্র তাই নয় গঙ্গাসাগর যাত্রীদের জন্য প্রত্যেক বছর আলাদাভাবে স্পেশাল ট্রেনের ব্যবস্থা রাখা হয় অনেক বেশি ভেসেল পরিষেবা দেওয়া হয় তার সাথে সাথে থাকে তাদের জন্য থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা তবে এ বছর তার থেকে আরো অনেক বেশি পরিষেবা দিতে না পারলে তাহলে করোনা পরিস্থিতি আরো ভয়ানক হয়ে উঠতে পারে। শুধুমাত্র করোনা পরিস্থিতির জন্য এবারের পরিষেবা আরও অনেক বেশী মজবুত এবং জোরালো করতে হবে। তার কারণ যথাযথ পরিমাণে যেমন ট্রেন পরিষেবা দেওয়া হয় তার থেকে আরো অনেক বেশি ট্রেনের পরিষেবা দেওয়া হবে এবং প্রত্যেক যাত্রীদের জন্য তিন থেকে চারবার স্যানিটাইজেশন এর ব্যবস্থা রয়েছে এছাড়াও রয়েছে মাক্স বিতরণ।


প্রত্যেক যাত্রীর যাতে নির্বিঘ্নে পৌঁছাতে পারে তীর্থস্থানে তার জন্য ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। গঙ্গাসাগরের বেশ অনেকটা এলাকাজুড়ে চলে যাওয়ার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে যাতে যাত্রীদের কোন অসুবিধে না হয়। মাঝ পথে ভাঁটা পড়ে যাওয়ার জন্য মাঝনদীতে দাঁড়িয়ে থাকতে না হয় তার জন্য আগে থেকেই ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। গঙ্গাসাগর বাকি এখনো প্রায় এক মাস আর এর মধ্যেই এখন থেকে বড় বৈঠকের মাধ্যমে পরিষেবা কি দেওয়া হবে তা নির্ঘন্ট ঠিক করে ফেলা হয়েছে। তবে তার মধ্যে প্রত্যেক যাত্রীদের জন্য করোনা পরিস্থিতির জন্য যেমন তিন থেকে চারবার স্যানিটাইজেশন করা হবে গঙ্গাসাগরে ঠিক একই রকমভাবে মাক্স বিতরণ করা হবে এবং প্রত্যেকের জন্য দূরত্ব এবং নিজেদের সুরক্ষা বজায় রাখার জন্য আরও অনেক বেশী পরিষেবা দিতে সক্ষম হবে বলে মনে করছে কলকাতা পুরসভা সুন্দরবন প্রশাসন।


প্রত্যেক বছর এত বেশি যাত্রী আসে এই তীর্থস্থানে তার জন্য অনেক বেশি পরিষেবা দিতে হয়। তবে এ বছর তার থেকে আরো অনেক বেশি দ্বিগুণ পরিষেবা দিতে হবে গঙ্গাসাগর যাত্রীদের জন্য। তীর্থ করতে আসা মানুষ প্রত্যেক বছর তাদের জন্য স্পেশাল ট্রেন থেকে শুরু করে স্পেশাল ব্যবস্থা রাখা হয় আর এ বছর আরও বেশি দ্বিগুণ ব্যবস্থা রাখতে হবে করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলা করার জন্য। তাই আলাদা রুম এবং থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা সব কিছুই রয়েছে এখানে আর তার পরিষেবায় দেবে প্রশাসন এর সাথে সাথে মানুষের যাতে অসুবিধা না হয় তার জন্য যথাযথ পরিমাণে ট্রেন-বাস এছাড়াও রয়েছে পরিষেবার জন্য ডেজিং করতে হবে বলেও জানিয়েছে তারা। কারণ অনেক বড় এলাকায় চড়ার জন্য যে সমস্যা হতে পারে সে সমস্যা থেকে মানুষকে মুক্তি দিতে ডেজিংয়ের ব্যবস্থাও রাখা হয়েছে। মানুষ যাতে অনেক বেশী সুবিধা পায় তার ব্যবস্থা করবে সমস্ত প্রশাসন এবং তাদের অনেক বেশি সুবিধা দেওয়া হবে বলে মনে করছে তা বলে গঙ্গাসাগর মেলা বন্ধ থাকবে না এই করণা পরিস্থিতিতে মেলা হবে এবং তার সাথে পরিষেবার সাধারণ মানুষ তথা তীর্থযাত্রীরা।

Post a Comment

নবীনতর পূর্বতন