সোমবার থেকে অফিস টাইমে অনেক বেশি লোকাল ট্রেন

গত ১১ ই নভেম্বর থেকে চালু হয়েছে লোকাল ট্রেন পরিষেবা। বর্ধমান রামপুরহাট রুটে চলছিলো এইরকম বেশকিছু ট্রেন। গত বুধবার থেকে চালু হয়েছিল লোকাল ট্রেন পরিষেবা। পরিষেবা চালু হলেও স্বাভাবিকভাবে মানুষ যাতায়াত করতে পারছিল না যেহেতু অফিস টাইমে প্রচুর মানুষের সমাগম সহ প্রত্যেক প্ল্যাটফর্মে। 

sealdah, train
Sealdah station

শহর টলি থেকে আসা এই সমস্ত মানুষের অনেক বেশি সমস্যা পরতে হচ্ছিল।সদুরত্ত বিধি মেনে ট্রেনে যাতায়াত করতে পারছিল না সাধারন মানুষ। যেহেতু ট্রেন চলছে সেই জন্য বিভিন্ন অফিস-আদালতে খুলে গেছে আর সেই সূত্রে অনেক বেশি সমস্যা হচ্ছিল অফিস যাত্রীদের। তার জন্যই শহরতলী থেকে আসা মানুষের কথা ভেবে রাজ্যের তরফ থেকে পুনরায় চিঠি দেওয়া হয়েছে রেল মন্ত্রকে। যাতে সেই পরিস্থিতি মোকাবিলা করা যায় আর সেই পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে গেলে বাড়াতে হবে আরো অনেক বেশি ট্রেন।

রাজ্য সরকারের তরফ থেকে জানানো হয়েছিল যে অনেক বেশি ট্রেন পরিষেবা দিতে হবে কারণ পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন রাজ্যে থেকে মানুষ নিজেদের জীবিকা নির্বাহের জন্য এবং শহরতলী থেকে যে সমস্ত মানুষ কলকাতাতে আসে নিজেরা কাজে ও তাদের জীবিকা নির্বাহ করতে আসে সেই সমস্ত মানুষের জন্য অনেক বেশি সমস্যার হয়ে দাঁড়াবে ট্রেন পরিষেবা বাড়াতে না পারলে। এই পরিষেবা অনেক বেশি না দিলে তাতে সমস্যা বাড়বে সাধারণ মানুষেরও এবং অফিস-আদালত করা মানুষের জন্য।

একই সমস্যা নিয়ে দ্বিতীয়বার আবারো চিঠি লিখল রাজ্য সরকারের কাছে। তিনি জানিয়েছেন যে আরো অনেক বেশি ট্রেন পরিষেবা বাড়াতে হবে তা না হলে সমস্যায় পড়তে হচ্ছে সাধারন মানুষের। আর অফিস-আদালতের টাইমে যদি সমান ভাবে বানানো হয় তাহলেই সম্ভব সেই পরিষেবা ঠিক ঠাক ভাবে মোকাবিলা করার।

রাজ্যের তরফ থেকে পাওয়া চিঠিতে রেলমন্ত্রী জানিয়েছে যে রাজ্যে এবারে ৬১২ টি লোকাল ট্রেন চলবে অর্থাৎ সাধারণ মানুষের কথা মাথায় রেখে ৬১২ টি লোকাল ট্রেনের ব্যবস্থা করা হচ্ছে রাজ্যে। আগামীকাল অর্থাৎ সোমবার থেকে চলবে সেই ট্রেন। এবার সাধারন মানুষ যাতে অফিস টাইমে ট্রেন পেতে পারে তার জন্য এই সুবিধা দেওয়া হবে রাজ্যের তরফ থেকে। 

শুধু তাই নয় রাজ্যের তরফ থেকে যদি সাধারন মানুষ সঠিকভাবে যাতায়াত না করে বা অফিস টাইমে যদি অনেক বেশি সমস্যা হয় সাধারণ মানুষের সেখানে বিপদ বাড়তে পারে। কারণ সাধারণ মানুষ যদি অনেক বেশি প্লাটফর্মে এবং বিভিন্ন জায়গায় অনেক বেশি ভীর তৈরি হয় তাতে করোনার পরিস্থিতি যেমন বাড়তে পারে সাথে সাধারণ মানুষের উদ্বেগ ও অনেক বেশী বাড়তে পারে।

আর এই কয়েকটা দিনে সেটা মানুষ বুঝতে পেরেছে। আর তার জন্য রাজ্যের কাছে এটাই দাবি ছিল আম আদমি জনতার যাতে ট্রেনের পরিষেবা চালু করলেও সেই পরিষেবা যেন সথিম ভাবে পাই। অনেক বেশি বাড়ানো হয় সাধারণ মানুষ এই পরিষেবার কথা মাথাই রেখে। 

প্রত্যেক দিন কলকাতায় বহু মানুষ আসে শহরতলী থেকে আর সেই মানুষদের সঠিকভাবে পরিষেবা না দিলে তারা কোনোভাবেই কেউ অফিসে এসে বাড়ি ফিরতে লেট হচ্ছে কিংবা কারোর অফিসে আসতে লেট হচ্ছে। তার জন্য অনেক সমস্যায় পড়েছে তারা এই কয়দিনে।

তাই রাজ্যের কাছে এটি নির্দেশ ছিল এবং রাজ্যের তরফ থেকে জানানো হয়েছিল যে ট্রেন পরিষেবা যেন আরও বাড়ানো হয়। আর এই ট্রেন পরিষেবা বাড়ালে সাধারণ মানুষ একটা স্বাভাবিক জীবন-যাপন করতে পারবে। বিশেষত বর্ধমান রামপুরহাট এছাড়াও বীরভূম কল্যাণী এই সমস্ত জায়গা থেকে প্রত্যেকদিন যাতায়াত করে কলকাতা থেকে বর্ধমান, কলকাতা থেকে রামপুরহাট সেই সমস্ত মানুষের জন্য অনেক বেশি সুবিধা হবে। 

কিন্তু ট্রেন কম থাকায় সেই সমস্ত ট্রেনের এবং এই ভিড়ের মধ্যে কোথায় কোথায় ছাড়া মানুষ ভাবতেই পারছে না। এই ট্রেনে যাতায়াত করা কতটা কঠিন তার জন্যই রাজ্যের তরফ থেকে এই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে এবং রাজ্যের কথা মেনে রেলের তরফ থেকে জানানো হয়েছে আগামী সোমবার থেকে চালু হবে এ রাজ্যে ৬১২ টি লোকাল ট্রেন।

এখন আগের থেকে অবস্থা কিছুটা হলেও স্বাভাবিক হবে বলে মনে করছে সাধারণ মানুষ। সোমবার থেকে অফিস টাইমে অনেক বেশি লোকাল ট্রেন দেওয়া হবে এবং অফিস থেকে ফেরার সময় অর্থাৎ অফিস ছুটির টাইম সন্ধ্যেবেলা ঠিক সেইসময় ও বেশকিছু ট্রেন বেশি দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। 

সারাদিনে যেমন ট্রেনের নিয়ম ছিল সেই হিসেবে হয়তো ট্রেন থাকবে। সেখানে একটা থেকে দুটো ট্রেন বাড়ানো যেতে পারে। কিন্তু স্বাভাবিকভাবে অফিস টাইম এবং অফিস ছুটির টাইমে অনেক বেশি ট্রেন রাখা হয়েছে প্রত্যেকটা রুটে।

Post a Comment

অপেক্ষাকৃত নতুন পুরনো