আসামের কামাখ্যা মন্দির সোনায় ভরিয়ে দিচ্ছে রিলায়েন্স

এবার রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রির তরফ থেকে মানুষের মনকে রাঙ্গিয়ে দেওয়ার মত একটি সুন্দর নিউ লুক সামনে এসেছে কামাখ্যা মন্দিরের এবং সৌজন্যে রয়েছে রিলায়েন্স জিওর কর্ণধার। এই মানুষ কখনো ভুলবে না এবং প্রয়োজনে প্রত্যেকটা মুহূর্তে সৌজন্যে মুকেশ আম্বানির নামকে মানুষ সব সময় মনে রাখবে বিশেষ করে অসমের মানুষ।

assam kamakhya temple
Guwahati Kamakhya Temple

অসমের কামাখ্যা মন্দির এবার সোনায় মুড়ে দিয়েছে মুকেশ আম্বানি। কামাখ্যা মন্দিরের চূড়া এখন সোনায় মোড়া বলা যেতে পারে সৌজন্যে রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজের কর্ণধার মুকেশ আম্বানি। তিনি কামাখ্যার মন্দির সুপ্রতিষ্ঠা করতে সাহায্য করেছে। মানুষ এই স্মৃতিসৌধতে অনেক বেশি যায় এবং মা কালীর মন্দির গুলির কে অনেক বেশি শ্রদ্ধা জানাই। হিন্দু ধর্মের মানুষ আর এই হিন্দু ধর্মের মানুষের মনকে আরো মনোনীত করতে সাহায্য করেছে মুকেশ আম্বানি। শুধু তাই নয় তিনি দেশের ধনী ব্যক্তি তিনি এত বড় একটি দান করেছেন তা অতুলনীয়। 

সুন্দর সুসজ্জিত ভাবে স্বর্ণ দিয়ে দিয়েছে কামাখ্যা মায়ের মন্দির। কামাক্ষা মন্দির এমনিতেই বিখ্যাত একটি মন্দির এই মন্দিরে সাধারণত ভক্তরা পুজো দিতে যায় এবং নিজেদের মনষ্কামনা মাকে জানাই। মনষ্কামনা পূর্ণ হয় কিন্তু এবার মায়ের মুখের দিকে তাকিয়েছে মুকেশ আম্বানি হয়তো সেটা সবথেকে বড় সাধ ছিল আর তিনি তাই ১৯ কেজি সোনায় মুড়ে দিয়েছে কামাখ্যার মন্দির। 

কামাখ্যা মন্দিরের মাথার উপরে রয়েছে তিন চূড়া এবং সবথেকে মাঝে যেটি প্রধান রয়েছে সেই ছড়াটি পুরোপুরি সোনার তৈরি হয়েছে। অন্য গুলিতে তামা দিয়ে কারুকার্য করা রয়েছে। অনেক বেশি স্থিতিশীল এবং স্মৃতিসৌধ বানাতে সাহায্য করেছে তিনি। যথাযথ কার্যকরী মিস্ত্রিদের দ্বারা সেই কাজ সম্পন্ন করেছেন এবং প্রত্যেকটা কাজ যাতে নিখুঁত এবং পরিকল্পনা মাফিক হয় তার জন্য কাজ শুরু হয়েছিল বহুদিন আগে থেকে আর সেই কাজ শেষ হয়েছে এবং তার উদ্বোধন হয়েছে খুব জাঁকজমক করে।

বাঙালির কাছে কালীমন্দির মানে সব থেকে বড় একটি ধর্মস্থান। আর এই কালীমন্দিরকে মানুষ স্বাভাবিকভাবে যাতায়াত করে এবং সেখানে নিজেদের মনের কামনা খুলে বলে আর সেই মন্দিরে মানুষের দুঃখ কষ্ট অনেক বেশি মায়ের কাছে সোপে দেয়। বিভিন্ন জায়গায় বিভিন্ন জেলায় কালী মন্দির রয়েছে এবং প্রত্যেকটা কালীমন্দির হিন্দু ধর্মের বহু মানুষ ছুটিতে ঘুরতে যায় নিজেদের মনস্কামনা পুরনে ঘুরতে জাই। কিন্তু এবার কামাখ্যা কালী মন্দিরে যে কারুকার্য করা হয়েছে তার জন্য অনেক বেশি মানুষ সেখানে মনোন্নয়নের জন্য যাবে। সেই সূত্রে মাকে দর্শন করতে পারবে। 

কামাখ্যা বিখ্যাত একটি মন্দির এবং সেই মন্দিরে অনেক বেশী কারুকার্য করে সোনা দিয়ে বেঁধে রেখেছে সেখানকার মানুষ। তারা জানিয়েছে এই কাজ সম্ভব হয়েছে শুধুমাত্র সেই মানুষটির জন্য যিনি রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রির একমাত্র কর্তা। তিনি না থাকলে এটি সম্ভব হতো না আর তিনি যথাযথ মনস্কামনা পূর্ণ করে এই কাজটির জন্য সাহায্য করেছে তাদেরকে এবং তিনি অনেক আগে থেকেই এই কাজটি করতে চেয়ে ছিলেন তাই এটি সম্ভব হয়েছে। তিনি নিজে জানিয়েছেন যে এই কাজ টি করতে পেরে তিনি অনেক গর্ব অনুভব করছে।

Post a Comment

أحدث أقدم